এই তিন পজিশনে সাবধান, ধ্বজভঙ্গ হতে পারে…

চিকিত্‍সকরা জানাচ্ছেন, যৌ’ন মিলনের বিশেষ তিন রকম ভঙ্গিই এমন যন্ত্রণাদায়ক সমস্যা ডেকে আনে।

বে-লাগাম যৌ’নতার জেরে পুরুষাঙ্গে চিড় ধরার ঘটনা নতুন নয়। চিকিত্‍সকরা জানাচ্ছেন, যৌ’ন মিলনের বিশেষ তিন রকম ভঙ্গিই এমন যন্ত্রণাদায়ক সমস্যা ডেকে আনে।

সারারাত উদ্দাম যৌ’ন মিলনের ফলে অনেক সময় পুরুষ ও নারী, উভয়ের যৌ’নাঙ্গে আঘাত সৃষ্টি করে। সমস্যা এড়াতে রতিক্রিয়ার মোট ৩ রকম ভঙ্গি সম্পর্কে সতর্ক করেছেন ব্রাজিলের একদল চিকিত্‍সক। এর মধ্যে প্রথমেই এড়িয়ে যেতে বলা হয়েছে কাউগার্ল সে’ক্স পজিশন। এই অবস্থায় সঙ্গমকালে শায়িত পুরুষের উপর শিরদাঁড়া সোজা রেখে বসেন নারী। তাঁর নিয়ন্ত্রণেই থাকে মিলনের গতি ও অবস্থানের নিয়ন্ত্রণ। চিকিত্‍সকদের দাবি, এর ফলে যে কোনও সময় বেঁকে গিয়ে মারাত্মক চোট পেতে পারে লিঙ্গ। ছিঁড়ে যেতে পারে লিঙ্গের পেশি।

দ্বিতীয় যে যৌ’নমিলনের ভঙ্গি সম্পর্কে বিশেষজ্ঞরা সচেতন করেছেন, তা হল ডগি স্টাইল। কুকুর-সহ চতুষ্পদদের অনুকরণ করে সঙ্গিনীকে সামনে রেখে পিছন থেকে যো’নিতে লিঙ্গ প্রবেশ করানোর চেষ্টায় বিপদ বাড়ে। এই অবস্থাতেও মিলনের সময়কার গতিবেগ ও কৌণিক অবস্থান থাকে নারীর নিয়ন্ত্রণে। প্রবল কামোত্তেজনার বশে অতি দ্রুত বেগে বার বার যোনিতে লিঙ্গ প্রবেশ করানোর সময় প্রায়ই অজান্তে নারীর শ্রোণী হাড়ে ধাক্কা খেয়ে মারাত্মক আঘাত পেতে পারে লিঙ্গ। এর জেরে তাতে চিড় ধরতে পারে।

তৃতীয় যে যৌ’নভঙ্গি সম্পর্কে সতর্ক করা হয়েছে, বিশ্ব তাকে মিশনারি সে’ক্স পজিশন নামে চেনে। যৌ’ন মিলনের আপাত স্বাভাবিক এই ভঙ্গিও ক্ষেত্র বিশেষে ভয়াবহ হয়ে উঠতে পারে। অতি উত্তেজনার জেরে যোনিতে প্রবেশ করার সময় লিঙ্গের কৌণিক অবস্থানে সামান্য হেরফের ঘটলেই এমন বিপদের আশহ্কা থাকে। অর্থাত্‍ লিঙ্গ যদি ১১০-৯০ ডিগ্রি অবস্থানে তীব্র গতিতে যোনিতে প্রবেশ করে, অনেক সময় নারীর শ্রোণি হাড়ে বাধাপ্রাপ্ত হয়ে বড়সড় চোট পেতে পারে। এতে লিঙ্গের অভ্যন্তরীণ পেশি ছিঁড়ে রক্তক্ষরণ এবং অসহ্য যন্ত্রণা সৃষ্টি হয়।

বিশেষজ্ঞদের নিদান, নিত্য-নতুন যৌ’ন মিলনের ভঙ্গি পাল্টে রোমাঞ্চ খুঁজতে যাওয়ার আগে সতর্ক হন। অহেতুক ঝুঁকি নিতে গিয়ে জীবনভর যন্ত্রণাময় যৌ’ন অভিজ্ঞতার শরিক হওয়া থেকে নিজেকে রক্ষা করুন।

আরও পড়ুন-তুমি আর নেই সে তুমি! স্ত্রী আপনার সঙ্গে শারীরিক মিলনে অরাজি? এই ৫ কারণ খুঁজুন…