শেখ হাসিনার সহায়তা চাইলেন ইমরান খান

বাংলাদেশ আবেদনই করেনি,পাকিস্তান জুনে ৯৪০ মিলিয়ন ডলার মওকুফ পেয়েছে।বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান ১ বছরের মধ্যে দ্বিতীয়বারের মতো টেলিফোনে কথা বললেন। তাদের মধ্যে কথা হয়েছে ১৫ মিনিট। এসময়ে উভয়দেশের কোভিড পরিস্থিতি ও বন্যা নিয়ে আলোচনা হয়। এরবাইরে সার্ক ইস্যু, কাশ্মির প্রসঙ্গ ও শেখ হাসিনাকে পাকিস্তান সফরের আমন্ত্রণ জানান ইমরান খান। প্রথমবার দুই প্রধানমন্ত্রীর মধ্যে কথা হয়েছিল ২০১৯ সালের শেষ দিকে শেখ হাসিনার ভারত সফরের আগে।

রেডিও পাকিস্তান জানায়, বৈদেশিক ঋণের সুদ মওকুফের বিষয়েও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে কথা বলেছেন ইমরান খান। উল্লেখ্য, পাকিস্তানের উন্নয়ন বাজেটের ৮৫ শতাংশই বৈদেশিক সাহায্য নির্ভর।

গত জুনে জি ২০ ভূক্ত দেশগুলো ৪১টি দেশের বৈদেশিক ঋণের সুদ মওকুফ করে। এরমধ্যে পাকিস্তানও রয়েছে।সেখানে ঋণ মওকুফের জন্য বাংলাদেশ আবেদনই করেনি। এই হিসাবে বৈদেশিক ঋণ মওকুফের ইমরান খানের ভবিষ্যতের দাবিকে শেখ হাসিনা হয়তো সমর্থনই দিবেন।

২০১৬ সালে যুদ্ধাপরাধীদের ফাঁসি হলে পাকিস্তান পর্লাামেন্ট যুদ্ধাপরাধিদের পাকিস্তানের জাতীয় বীর হিসাবে চিহ্ণিত করে। এরপরেই পাকিস্তানের সঙ্গে সম্পর্ক খারাপ হয় বাংলাদেশের। এরপর প্রায় ২০ মাস পাকিস্তানের রাষ্ট্রদূতকে গ্রহণ করেনি বাংলাদেশ। গত জানুয়ারিতে পাকিস্তানের রাষ্ট্রদূত ইমরান আহমেদ সিদ্দিকি বাংলাদেশে রাষ্ট্রদূত হিসাবে দ্বায়িত্ব পান।